হোমনায় ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে ভেস্তে গেছে প্রান্তিক কৃষকের সোনালী স্বপ্ন.

হোমনায় ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে ভেস্তে গেছে প্রান্তিক কৃষকের সোনালী স্বপ্ন.

আব্দুল হক সরকার
ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে ভেস্তে গেছে কুমিল্লা জেলার হোমনা উপজেলার শতশত প্রান্তিক কৃষকের সোনালী স্বপ্ন।
রবিবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত বৃষ্টি পাতের কারনে আলু,গম,ভুট্টা,ডাল,শাকসবজি সহ রবিশস্যের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, বৃষ্টির কারনে অঙ্কুরিত বীজ থেকে গজিয়ে ওঠা ফসলের ডগা পানিতে পচে গেছে। এতে কৃষকের মাথায় হাত।
সরেজমিনে গিয়ে দেখাগেছে, ওপারচর, মাথাভাঙ্গা,বাগমারা, ও দদড়িচর চকে এবছর প্রচুর পরিমান আলুর চাষ হচ্ছে। প্রকৃতিক দদুর্যোগে না পড়লে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা ছিল। প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারনে এই ক্ষয়ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের মাঝে কৃষি সহযোগিতা দ্রুত পৌঁছে দিতে পারলে প্রান্তিক কৃষক দ্রুত ঘুরে দাঁড়াতে পারবে। নতুবা স্বপ্ন দুঃস্বপ্নে পরিনত হবে।

উপজেলার ওপারচর গ্রামের পারুল আক্তার নামের এক কৃষানী, জানান এ বছর বিএডির বীজে ব্যাংক থেকে লোন নিয়ে ৫০ বিঘা জমিতে আলুর চারা রোপন করছিলাম। বৃষ্টির কারনে রোপন করা সব আলুর জমিতে পানি জমে সমস্ত আলুর চারা পচে যায়। আমার সোনালী স্বপ্ন , ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেছে সোনলী স্বপ্ন।

দড়িচর গ্রামের মো. আনোয়ার হোসেন বলেন আমার ৫০ বিঘা জমিতে আলু বীজ রোপন বাবত খরচ হয়েছে প্রায় ১০ থেকে ১২ লক্ষ টাকা। ব্যাংক ঋণ কিভাবে পরিশোধ করবো সেই চিন্তায় রাতে আমার ঘুম আসে না।
এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. মাহমুদুল হাসান জানান,ঘুর্নি ঝড়ের প্রভাবে কৃষকের অনেক ক্ষতি হয়েছে। আমরা চেষ্টা করবো সাহায্য সহযোগীতা দিয়ে তাদের সহযোগীতা করতে। কেন না “কৃষক বাঁচলে, বাঁচবে দেশ”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *